রবিবার, ২৬ মে ২০২৪ইংরেজী, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বাংলা ENG

শিরোনাম : বস্তি নয়, রিকশাওয়ালা-দিনমজুররাও থাকবে ফ্ল্যাটে: প্রধানমন্ত্রী আবারো আলোচনায়: ‘দি ম্যান এন্ড কোম্পানি’ সিলেট সচেতন নাগরিক কমিটির সকল কর্মসূচী বাতিল জেলা প্রেসক্লাবে সংবর্ধনা: সুমন'র এই অর্জন সিলেটের সাংবাদিকদের সম্মানিত করেছে কুলাউড়ায় রেললাইনে পারুলের ক্ষত বিক্ষত মরদেহ সিসিকের হোল্ডিং ট্যাক্স বাতিল, হবে রি-এসেসমেন্ট: মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী চা শিল্পের নানা সমস্যা নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা বাগান মালিকদের খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তারেকের উপর মামলা প্রত্যাহার দাবিতে লন্ডনে মিছিল-সমাবেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিকতায় সিলেট থেকে সরাসরি হজ ফ্লাইট চালু হয়েছে : শফিক চৌধুরী হোল্ডিং ট্যাক্স বাতিলের দাবিতে ২৮মে কোর্ট পয়েন্টে সমাবেশ

চায়ের রেকর্ড উৎপাদন হলেও কম

সিলেট সান ডেস্ক ::

২০২৪-০৫-১১ ২২:২৮:৪৪ /

ছবি সংগৃহীত :

গত বছর অর্থাৎ ২০২৩ সালে চা চাষের ইতিহাসে সর্বোচ্চ উৎপাদন হয়েছিল। সেই চা নিলামে বিক্রি শেষ হয়েছে গত ৮ এপ্রিল। তাতে দেখা যায়, নিলামে প্রতি কেজি চা গড়ে বিক্রি হয়েছে ১৭১ টাকা ২৪ পয়সা।

চায়ের নিলামের গত ১২ বছরের ইতিহাসে এই দর সবচেয়ে কম। এ অঞ্চলে চা চাষ শুরু হয় ১৮৪০ সালে। চায়ের বিপণনের নিয়ম অনুযায়ী, বাগানমালিকেরা বাগান থেকে পাতা তুলে চা তৈরির পর তা গুদামে পাঠান।

ব্রোকার্স প্রতিষ্ঠানগুলো সেখান থেকে নমুনা সংগ্রহ করে। নমুনা অনুযায়ী চায়ের মান নির্ধারণ করে তারা। এরপর প্রতি সপ্তাহে নিলামে সর্বোচ্চ দরদাতার কাছে চা বিক্রি করা হয়।

লট অনুযায়ী সর্বোচ্চ দরদাতারা কর পরিশোধ করে গুদাম থেকে চা তুলে নেন। এর বাইরে বাগানমালিকেরা চাইলে নিজস্ব বাগানের উৎপাদিত চায়ের ২৫ শতাংশ নির্ধারিত পরিমাণ কর দিয়ে প্যাকেটজাত করে বাজারে বিক্রি করতে পারেন।বর্তমানে দেশে তিনটি নিলামকেন্দ্র-চট্টগ্রাম, শ্রীমঙ্গল ও পঞ্চগড়ে চায়ের নিলাম অনুষ্ঠিত হয়।

এই তিন নিলামকেন্দ্রের তথ্যে রেকর্ড উৎপাদন ও সর্বনি¤œ দরের চিত্র উঠে এসেছে। ব্রোকার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিবেদনেও এ হিসাব তুলে ধরা হয়।

১২ বছরে সবচেয়ে কম দর :

নিলামের প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০২৩-২৪ মৌসুমে চট্টগ্রামে ৫০টি নিলামে চা বিক্রি হয়েছে ৯ কোটি ৪৮ লাখ কেজি। প্রতি কেজি চায়ের গড় দর পাওয়া গেছে ১৭১ টাকা ৯১ পয়সা।

শ্রীমঙ্গলে ২৫টি নিলামে ১৩ লাখ ৪০ হাজার কেজি চা বিক্রি হয়েছে। প্রতি কেজি চায়ের গড় দর ছিল ১৭১ টাকা ৩৮ পয়সা। এ ছাড়া পঞ্চগড়ে ১৪টি নিলামে ৯ লাখ ৬০ হাজার কেজি চা বিক্রি হয়েছে প্রতি কেজি গড়ে ১০৫ টাকা ১৯ পয়সায়।

সব মিলিয়ে তিনটি নিলামকেন্দ্রে ৯ কোটি ৭১ লাখ কেজি চা বিক্রি হয়েছে। এতে গড় দর পাওয়া গেছে ১৭১ টাকা ২৪ পয়সা। চা বোর্ড ও ব্রোকার্স প্রতিষ্ঠানগুলোর তথ্যে দেখা যায়, গত ১২ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম দরে চা বিক্রির রেকর্ড রয়েছে ২০১১-১২ মৌসুমে।

সেবার প্রতি কেজি চা নিলামে গড়ে বিক্রি হয়েছে ১৫৬ টাকা ১৪ পয়সায়। এরপর সবচেয়ে কম দর ছিল সদ্য শেষ হওয়া ২০২৩-২৪ মৌসুমে। গত ১২ বছরে নিলামে চায়ের সবচেয়ে ভালো দাম পাওয়া গেছে ২০১৮-১৯ মৌসুমে।

ওই সময়ের নিলামে প্রতি কেজি চা গড়ে বিক্রি হয়েছে ২৬২ টাকা ৯৬ পয়সায়। সেবার ২ হাজার ৮৬ কোটি টাকার চা নিলামে বিক্রি হয়েছিল। মজুরি ও উপকরণের দাম বাড়ায় চা-শিল্পে উৎপাদন খরচ বেড়েছে।

চা-বাগানের মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ টি অ্যাসোসিয়েশনের হিসাবে, উৎপাদন খরচের চেয়ে নিলাম দর অনেক কম। তাতে চা-শিল্পে উৎপাদকেরা লোকসান গুনছেন।

বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনে গত ২০ নভেম্বর পাঠানো এক চিঠিতে সংগঠনটি জানায়, ২০২২ সালে প্রতি কেজি চায়ের গড় উৎপাদন খরচ ছিল ২১৭ টাকা।

২০২৩ সালে উৎপাদন খরচ আরও বেড়েছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির সভাপতি কামরান টি রহমান।

২৪ এপ্রিল চা বোর্ডের ন্যূনতম মূল্য নির্ধারণবিষয়ক একটি কমিটির বৈঠকের কার্যবিবরণীতে বলা হয়েছে, ২০২৩ সালে চা উৎপাদনে ৪৬৫ কোটি টাকা লোকসান হয়েছে।

এ জাতীয় আরো খবর

সিলেট বিভাগে প্রতিদিন ডিমের ঘাটতি ২৫ লাখ: কর্মশালায় তথ্য

সিলেট বিভাগে প্রতিদিন ডিমের ঘাটতি ২৫ লাখ: কর্মশালায় তথ্য

চায়ের রেকর্ড উৎপাদন হলেও কম

চায়ের রেকর্ড উৎপাদন হলেও কম

বাড়ল সয়াবিন তেলের দাম

বাড়ল সয়াবিন তেলের দাম

বাজার নিয়ন্ত্রণে ৮৩ হাজার মেট্রিক টন চাল আমদানির উদ্যোগ

বাজার নিয়ন্ত্রণে ৮৩ হাজার মেট্রিক টন চাল আমদানির উদ্যোগ

উৎপাদন খরচ নিয়ে দুশ্চিন্তা:  আমদানির খবরে ঠাকুরগাঁওয়ে কমছে আলুর দাম

উৎপাদন খরচ নিয়ে দুশ্চিন্তা: আমদানির খবরে ঠাকুরগাঁওয়ে কমছে আলুর দাম

 আরো ১ লাখ ১৬ হাজার ২৪৯ জন বিদ্যুৎ গ্রাহক প্রি-পেমেন্ট মিটারের আওতায় আসছেন

আরো ১ লাখ ১৬ হাজার ২৪৯ জন বিদ্যুৎ গ্রাহক প্রি-পেমেন্ট মিটারের আওতায় আসছেন